দুর্ঘটনায় মারা গেল মা, পরিচয় মিললো দেড় বছরের মেহেদির

ময়মনসিংহের ভালুকায় সড়ক দুর্ঘটনায় মা মারা গেলেও দেড় বছরের বেঁচে যাওয়া শিশুর পরিচয় মিলেছে। বেঁচে যাওয়া শিশুটির নাম মেহেদী হাসান ও নিহত মায়ের নাম জায়েদা খাতুন (৩২)। জায়েদা খাতুন সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার খুশিউড়া গ্রামের মো. রমিজ উদ্দিনের মেয়ে।
শনিবার (১১ মে) রাতে ভালুকা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আতাউর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, জায়েদা খাতুনের বিয়ে হয় নরসিংদীর পলাশ থানার গজারিয়া ইউনিয়নের কফিল উদ্দিনের ছেলে মো. ফারুক মিয়ার সঙ্গে। ফারুক মিয়ার আগেও একটি বিয়ে করেন। সে ঘরে এক স্ত্রী ও তিন সন্তান রয়েছে। জায়েদার দ্বিতীয় বিয়ের বিষয়টি পরিবার মেনে নেয়নি এবং স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগও নেই তার। তাই জায়েদা খাতুন ভালুকার স্কয়ার মাস্টারবাড়ি এলাকায় দেড় বছর বয়সী শিশুসন্তান মেহেদীকে নিয়ে ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।

নিহত জায়েদার বড় ভাই মো. রবিন মিয়া বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মৃত্যুর খবর পেয়ে থানা পুলিশের সঙ্গে কথা বলে মরদেহ নিতে এসেছি।

জায়েদা খাতুনের স্বামী ট্রাক ড্রাইভার ফারুক মিয়া বলেন, জায়েদাকে সাত-আট বছর আগে বিয়ে করার পর পরিবার আমাদের মেনে না নেয়ায় জায়েদা বিভিন্ন এলাকায় বসবাস করতো। জায়েদা মারা যাওয়ার খবর জানতে পেরে তার পরিবারকে খবর দেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের চিকিৎসক ফারজানা বলেন, শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মায়ের মৃত্যু হয়েছে। এখন শিশুটি হাসপাতালের ২৬ নাম্বার ওয়ার্ডে ভর্তি আছে। শিশুটির মাথায় এবং হাতে আঘাতের চিহ্ন আছে। তবে আমরা তার চিকিৎসা নিয়মিত মনিটরিং করছি। শিশুটি সুস্থ আছে।

উল্লেখ : গত ৯ মে রাত ৩টার দিকে ভালুকা উপজেলার স্কয়ার মাস্টারবাড়ি এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন জায়েদা। শিশুটি বেঁচে গেলেও সে মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়। শিশুটিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।