Breaking News
Home / News Line / এবার আলোচনা-সমালোচনায় শিপ্রা!

এবার আলোচনা-সমালোচনায় শিপ্রা!

মেজর রাশেদ খান (অবঃ) এর হ’ত্যার ঘ’টনাকে ফো’কাস না করে হঠাৎ শিপ্রা কেন নিজেদের চ্যানেলের প্রচা’রণায় ব্যস্ত হয়ে গেলো? এক সাংবাদিক সাক্ষাৎকারে শিপ্রাকে প্রশ্ন করা হয়, সেদিন রাতে কি হয়েছিলো? শিপ্রা উত্তরে বলে, সরি আমি এবিষয়ে কোন মন্তব্য করতে পারছি না।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন
সাংবাদিক আবারও প্রশ্ন করে, আপনাকে মা’দকদ্রব্য নিয়’ন্ত্রণ আ’ইনে গ্রে’প্তার দেখানো হয়েছে, আসলেই কি আপনার কাছে কোন মা’দক ছিলো? শিপ্রা উত্তরে বলে, সরি আমি এবিষয়ে কোন মন্তব্য করতে পারছি না। তার নিকট তৃতীয় প্রশ্ন করা হয়— যেদিন তাকে হ’ত্যা করা হয়, সেদিন কি তিনি সেনাবাহিনীর combat t shift, pant, shoes পরে ছিলেন? শিপ্রা বরাবরের মতে বলে, আপনি যদি কে’ইস রিলেটেড কোন প্রশ্ন না করেন, তাহলে আমি খুশি হবো।

আবার প্রশ্ন করে, এই যে জাস্ট গো ও ভ্রমণ বিষয়ক আইডিয়াটা কার ছিলো? আচ্ছা মেজর রাশেদ খান (অবঃ) নাকি আপনাদের? শিপ্রা উত্তরে বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে একটা ইউটিউব চ্যানেল খুলবো বলে চিন্তা করছিলাম, এবং প্ল্যানটা সিনহার সাথে যখন শেয়ার করি তখন সে আগ্রহ দেখায় ও বলে, Let’s do it together.

এর আগে মিডিয়া সাক্ষাৎকারে আমরা দেখেছি শিপ্রা বলেছে, আমরা সব সত্য বলবো। আমরা এখন ট্র’মাটাইজড। এমনকি সিফাতের কথা বারবার সে বলে দিয়েছে। সিফাত যখন মুখ খুলতে গেছে, তখন মিডিয়ার সামনেই সিফাতের হাত চেপে ধরেছে এবং সিফাতকে শিপ্রা কোন কথা বলতে দেয়নি।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন
শিপ্রা ট্র’মাটাইজড হলে সে মিডিয়ার সামনে কেন? নিজের ইউটিউব চ্যানেলের প্রচারণা করতে? হ্যাঁ। শিপ্রা সেটিই বলেছে, সে বলেছে তাদের স্বপ্ন ছি’নিয়ে নেওয়ার চে’ষ্টা করা হচ্ছে। তাদের জাস্ট গো নামে একাধিক চ্যানেল খোলা হয়েছে, তাই তারা তাদের চ্যানেলে ভিডিও আপলোড শুরু করেছে। এবং এবিষয়ে কথা বলা শুরু করেছে।

প্রথমদিনের সাক্ষাৎকার থেকেই শিপ্রার কথাবার্তা অ’তিউৎসাহীমূলক। সিফাত কথা বলতে চাইলেও, সে তার মুখ ব’ন্ধ করে দেয়। তাদের মু’ক্তির দাবিতে রাজপথে আ’ন্দোলন হয়েছে। সবাই বরাবরই বলেছে, আপনারা রাজসা’ক্ষী। আপনারা বাইরে আসলে জাতি সব সত্য জানতে পারবে, কিন্তু?

শিপ্রার বক্তব্যের মাঝে মেজরের প্রতি ন্যূনতম সম্মান বা তার মেধাকে মূল্যায়ন করা লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। যেখানে সিফাতের বিভিন্ন বক্তব্যে সিনহা স্যার শোনা গেছে। আপনি বলছেন, সিনহা, ও, ওর ইত্যাদি। মেজর সিনহা বন্ধু থাকলেও তখন ছিলো, এখন জিনিসটা কিভাবে প্রেজেন্ট করতে হবে সেই বিষয়ে শিপ্রার উপস্থাপনা দেখে অবাক সবাই।

এদিকে আসিফ নজরুল তার এক ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, মেজর সিনহার হ’ত্যাকান্ডের পর শিপ্রা দেবনাথের একটি ভিডিও দেখে হতভম্ব হয়ে পড়েছি। মনে হয়েছে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহার হ’ত্যার বি’চার না, শিপ্রার আসল চিন্তা ইউটিউব চ্যানেলের উপর নিয়ন্ত্রন নিয়ে।

সে যেভাবে বলল সিনহা ‘মা’রা গেছে’ মনে হলো যেন তাকে কেউ হ’ত্যা করেনি, পাহাড়-টাহার থেকে দু’র্ঘটনাবশত পড়ে মৃ’ত্যুটি ঘটেছে! তার সাথে সিনহার যতো অন্তরঙ্গ সম্পর্ক থাকুক না কেন, পাবলিকলি সে যেভাবে সিনহা সিনহা বলে তাকে উল্লেখ করেছে তা অত্যন্ত অ’রুচিকর লেগেছে আমার কাছে।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন
আর এতো ঘনিষ্ঠ যদি হয় তাদের সম্পর্ক, তাহলে তার ম’র্মান্তিক হ’ত্যাকাণ্ডের পর শিপ্রার আচরণ তো খুব স’ন্দেহজনকও বলতে হবে! পুরো ভিডিওটা দেখে আমি এমন বিরক্ত হয়েছি যে তা বলার মতো না। কি দুর্ভাগা, মেজর সিনহা এমন একটা আজব সহকর্মী রেখে গেছে তার সম্পর্কে বলার জন্য।

অপরদিকে শিপ্রা দেবনাথের সমালোচনা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরও। শিপ্রার ফেসবুক প্রোপাইলে প্রকাশিত একটি ভিডিও নিয়ে সমালোচনা করে পোস্ট দেন নুরুল হক নুর। সেখানে তিনি মেজর সিনহার হ’ত্যাকাণ্ড নিয়ে কথা না বলার জন্য শিপ্রা দেবনাথ ও সিফাতের সমালোচনা করে বলেন, তোমাদের ভূমিকা শুধু আমাদেরকে নয়, পুরো জাতিকেই হতাশ করছে।

ভিপি নুরুল হক নুর বলেন, তোমাদের সেলেব্রিটি বানানোর জন্য আমরা রাজপথে নামিনি। স’ত্য উদঘাটনের জন্য রাজপথে নেমে বরগুনায় আমার ভাই-বোনেরা প্রদীপ, লিয়াকতদের উত্তরসূরীদের লাঠিপেটা খেয়েছে, একজন এসআই চড় খেয়েছে। প্রতিবাদী মানুষগুলো রাজপথে না নামলে, তোমাদেরকে হয়তো মা’মলার আ’সামি হয়েই কারাগারে থাকা লাগতো মাস কিংবা বছর।

তিনি বলেন, তোমরা মু’ক্ত হওয়ার পর স’ত্য উদঘাটনে যে সংগ্রামে নেমেছি সেটি সহজ হবে বলে মনে করেছিলাম। কিন্তু বর্তমানে তোমাদের ভূমিকা শুধু আমাকে কিংবা আমাদেরকে নয়, পুরো জাতিকেই হতাশ করছে।

‘তোমাদের পাশে পুরো জাতি ছিলো। অথচ তোমরা বুঝলে না। তোমরা চাইলে জাতির কাছে সৎ-সাহসী, অ’ন্যায়ের বি’রুদ্ধে আপোষহীন বীর হিসেবে নিজেদের তুলে ধরে সম্মানিত হতে পারতে। কিন্তু এখন ওদের ভ’য়ে তোমরা আত্মকেন্দ্রিক হয়ে যাচ্ছো। যা আমাদেরকে সাময়িক পীড়া দিলেও পরবর্তীতে তোমাদের জন্যই বি’পদের কারণ হবে।’

কারণ ওরা (প্রশাসন) হয়তো এখন প্রয়োজনে তোমাদেরকে সত্য না বলার জন্য চা’প দিচ্ছে। পাশে থাকবে বলছে, প্রলোভন দেখাচ্ছে। কিন্তু প্রয়োজন শেষে ওরাই তোমাদের বিপদে ফেলতে সময় নেবে না। তাই সময় থাকতে তোমাদের শুভবুদ্ধির উদয় হোক, যোগ করেন ডাকসুর সাবেক এই ভিপি।

About pressroom

Check Also

শীতে বিয়ে না করার পরামর্শ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে আসন্ন শীতে বিয়ে ও পিকনিকসহ জনসমাগম হয় এমন অনুষ্ঠান আয়োজন না করার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered by keepvid themefull earn money