অনুমতি না নিয়ে সম্পদ ক্রয় করা সরকারি কর্মকর্তাদের তালিকা তৈরি হচ্ছে!

সাবেক পুলিশপ্রধান বেনজীর আহমেদের সম্পদের বিষয়ে সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে নানা রকম সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। এরই মধ্যে সাবেক এই পুলিশপ্রধানের স্থাবর-অস্থাবর সব সম্পত্তি ক্রোক করার আদেশ দিয়েছেন আদালত। তার সম্পত্তির নতুন নতুন খোঁজখবরও বের হতে শুরু করেছে। বেনজীরকে নিয়ে ঘটনাপ্রবাহ যে নাটকীয় মোড় নিয়েছে, তা একই সঙ্গে বিস্ময় ও তুমুল আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

এদিকে চাকরিতে থাকাকালীন সময়ে তিনি তার স্ত্রী এবং কন্যাদের নামে যে বিপুল সম্পদ বানিয়েছিলেন তার কোনটার জন্যই সরকারের কোন অনুমতি নেননি। অথচ সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারী চাকরি বিধি অনুযায়ী একজন সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারী যদি কোন স্থাবর সম্পত্তি কিনতে চান তাহলে সরকারের কাছে লিখিত ভাবে আবেদন করতে হবে। এবং সরকারের অনুমোদন সাপেক্ষে তিনি ওই সম্পদ কিনতে পারবেন। তাছাড়া কোন সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারীর স্বামী, স্ত্রী বা পরিবারের কোন সদস্য যদি কোন ব্যবসা বাণিজ্যের সঙ্গে যুক্ত হতে চান তাহলে সে ক্ষেত্রেও তাদেরকে অনুমতি দিতে হবে।

অতীতে বিভিন্ন ক্ষেত্রে যে সমস্ত সরকারি কর্মকর্তারা ছিলেন, তাদের স্ত্রী এবং সন্তানদের ব্যবসা বাণিজ্যের বিষয়টি সরকারের কাছ থেকে অনুমোদন নিয়ে করা হতো। কিন্তু বেনজীর আহমেদ যেন ছিলেন আইন বিচারের ঊর্ধ্বে। তিনি কোন কিছুই মানতেন না। চাকরিতে থাকা অবস্থায় তিনি বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিক হয়েছিলেন, জমি কিনেছিলেন। যদিও এসব তার নিজের নামে নয়। তার স্ত্রী এবং নাবালিকা সন্তানদের নামে করেছিলেন। কিন্তু সরকারি কর্মচারী আচরণ এবং শৃঙ্খলা বিধি অনুযায়ী এ ধরনের সম্পদ করার ক্ষেত্রে অবশ্যই অনুমতি নেওয়া বাধ্যতামূলক।

এদিকে বেনজীর আহমেদের এই ঘটনার পর নড়েচড়ে বসেছে সরকার। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সূত্রে জানা গেছে যে, সরকারি কর্মকর্তাদেরকে আইনের কথাটা নতুন করে স্মরণ করিয়ে দেওয়া হবে। এ সংক্রান্ত একটি চিঠি আগামী সপ্তাহে সকল কর্মকর্তা কর্মচারীদের কাছে প্রেরণ করা হবে। নতুন করে তাদেরকে স্মরণ করিয়ে দেওয়া হবে। তারা যদি কোন স্থাবর সম্পদের মালিক হন যেমন জমি জমা ফ্ল্যাট ইত্যাদি, সেক্ষেত্রে তাদেরকে সরকারের অনুমতি নিতে হবে।

এছাড়াও ওই চিঠিতে একজন সরকারি কর্মকর্তার স্বামী, স্ত্রী বা সন্তান কোন ব্যবসা বাণিজ্যের সঙ্গে যুক্ত হন, সে ক্ষেত্রেও সরকারের অনুমতি নেওয়ার আইনি বাধ্যবাধকতার কথা তাদেরকে স্মরণ করিয়ে দেওয়া হবে। এবং একটি নির্দিষ্ট সময়ের পর কোন কোন সরকারি কর্মকর্তার কী কী স্থাবর সম্পত্তি আছে এবং সেটি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্টদেরকে অবহিত করা হয়েছে কি না সে সম্পর্কে একটি তালিকা প্রস্তুত করা হবে। এই তালিকা অনুযায়ী যারা সরকারের কোন অনুমতি না নিয়েই সম্পদের মালিক হয়েছেন, সেই সমস্ত সম্পদগুলোকে অবৈধ সম্পদ হিসেবে ঘোষণা করা হবে। এ ক্ষেত্রে তাদেরকে আইনের মুখোমুখি দাঁড় করানো হবে বলেও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলেছেন।

আইন থাকার পরও কেন এতদিন মানা হয়নি- এ ব্যাপারে অবশ্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এখনই কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে জানান, সাধারণত প্রশাসন ক্যাডারে যাদের স্ত্রী ব্যবসা বাণিজ্যিক করেন বা প্রশাসন ক্যাডারের কোন কর্মকর্তা যদি স্থাবর সম্পত্তি যেমন ফ্ল্যাট জমি ইত্যাদি কেনেন তাহলে তারা চাকরি বিধি মেনেই অনুমতি নেন। কিন্তু বেনজীর আহমেদের ক্ষেত্রে এর ব্যত্যয় ঘটেছে বলেও তিনি স্বীকার করেন।

তিনি বলেন, এই বিষয়টি সামনে আসার আগে পর্যন্ত সরকারের কেউই জানতেন যে, বেনজীর আহমেদ এতো বিপুল পরিমাণ সম্পত্তির মালিক। তবে এই ঘটনা সরকারকে সতর্ক করেছে বলেও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল মহল বলছে। এখন থেকে এই বিষয়টি কড়া নজরদারি আরোপ করা হবে এবং অনুমতি না নিয়ে যারা সম্পদ কিনেছে তাদের তালিকা করে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।