বাবা জিপিএ-৫, পুত্র-৪.৮৬

ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলায় বাবা ও ছেলে একসঙ্গে এসএসসি পাশ করেছেন। ফলাফলে বাবা জিপিএ-৫ পেলেও ছেলে পেয়েছে ৪.৮৬।সোমবার (২৮ নভেম্বর) এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় প্রকাশিত ফলাফলে পিতা-পুত্র একসঙ্গে এসএসসি পাশ করায় পরিবার ও এলাকায় আনন্দের বন্যা বইছে।ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার ২নং গৌরীপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ইউপি সদস্য মো. এখলাছ উদ্দিন নয়ন এবার জিপিএ-৫ পেয়েছেন। তার পুত্র রাকিবুল হাসান রায়হানও জিপিএ-৪.৮৬ পেয়ে পাশ করেছে।

এখলাছ উদ্দিন নয়ন উপজেলার ২নং গৌরীপুর ইউনিয়নের বায়ড়াউড়া গ্রামের আব্দুল বারেকের পুত্র। তার মাতার নাম মোছা. সখিনা খাতুন।এখলাছ উদ্দিন নয়ন গৌরীপুর উপজেলা শারীরিক প্রতিবন্ধী সমিতির সাধারণ সম্পাদক। তিনি জানান, তার স্ত্রী সমলা বেগমের আগ্রহ ও ইচ্ছার কারণেই আবারো খাতা-কলম নিয়ে বিদ্যালয়ে ছুটে যাই।তিনি দুই সন্তানের জনক। তার বড় মেয়ে আঁখি আক্তার গৌরীপুর মহিলা ডিগ্রি কলেজে স্নাতক (অনার্স) সমাজকর্ম বিভাগে দ্বিতীয় বর্ষে অধ্যয়নরত।

এখলাছ উদ্দিন নয়ন বায়ড়াউড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষার সমাপনী করেন। এরপর গৌরীপুর আরকে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন ১৯৯৬ সালে। শারীরিক সমস্যার কারণে তিনি আর সেই সময় পরীক্ষার টেবিলে বসতে পারেন নাই। এবার বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে নেত্রকোনা জেলার মগরুল আদর্শ কারিগরি ইন্সটিটিউট থেকে পরীক্ষা দেন।

কম্পিউটার অ্যান্ড ইনফরমেশান টেকনোলজি বিভাগের অনিয়মিত ছাত্র হিসেবে পরীক্ষা দিয়ে জিপিএ-৫ অর্জন করেন। তার জন্ম তারিখ ১ জানুয়ারি ১৯৭৭।তার ছেলে রাকিবুল হাসান রায়হান একই বোর্ডের অধীনে গৌরীপুর সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে পরীক্ষা দেয়। বিল্ডিং মেনটেন্যান্স বিভাগের নিয়মিত ছাত্র হিসেবে পরীক্ষায় ৪.৮৬ পেয়ে এসএসসি উত্তীর্ণ হয়।

পিতা-পুতের এ বিজয় অর্জনে তাদের তাৎক্ষণিকভাবে শুভেচ্ছা জানান ময়মনসিংহ-৩ গৌরীপুর আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, ৪১ বছরে এসেও এখলাছ উদ্দিন নয়ন শুধু এসএসসি পাশ করেননি, জিপিএ-৫ পেয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন। এতে আমরা আনন্দিত।নয়নের পুত্র রায়হান জানায়, বাবাকে নিয়ে এক টেবিলে পড়েছে। একসঙ্গে রাত জেগে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিয়েছে। বাবার এ অর্জনে আমিও গর্বিত।

Leave a Comment