স্নাতক পর্যন্ত জীবনের সব পরীক্ষায় প্রথম ,শিক্ষক বাবার মেয়ে নিশি এবার হলেন জজ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) প্রথমবারের মতো সহকারী জজ হিসেবে ১০২তম হয়ে সুপারিশপ্রাপ্ত হয়েছেন আইন বিভাগের ২০১৫-১৬ সেশনের শিক্ষার্থী নিশি আক্তার। বর্তমানে তিনি কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তরে পড়াশোনা করছেন। স্নাতক পর্যন্ত জীবনের সব পরীক্ষায় প্রথম হয়েছেন নিশি। স্নাতকে ৩.৭৩ সিজিপিএ নিয়ে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হন তিনি।

নিশি আক্তারের বাড়ি লক্ষ্মীপুরের কলমনগর উপজেলায়। তিন বোন চার ভাইয়ের মধ্যে তিনি ৬ষ্ঠ। বাবা আবদুল মালেক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক এবং মা আয়েশা বেগম গৃহিণী।

২০১২ সালে তোরাবগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় মানবিক বিভাগ থেকে গোল্ডেন এ প্লাস পেয়ে এসএসসিতে উত্তীর্ণ হন। এরপর ২০১৪ সালে নোয়াখালী সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসিতেও গোল্ডেন এ প্লাস পান। পরবর্তীতে কোন ধরনের কোচিং না করেই কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পান।

অনুভূতি প্রকাশ করে নিশি আক্তার বলেন, আমার সফলতার পেছনে আমার বাবা মায়ের অনেক অনুপ্রেরণা ছিলো। আমি ছোট বেলা থেকেই জীবনে সফল হওয়ার স্বপ্ন দেখতাম। পরিশ্রম আর চেষ্টা আমাকে এতোদূর নিয়ে এসেছে। আমি আমার শিক্ষক, আত্মীয় স্বজন এবং বন্ধুদেরকে ধন্যবাদ জানাই যারা আমাকে চলার পথে সহযোগিতা করেছে।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালের জানুয়ারিতে সহকারী জজ পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশন। বিজ্ঞপ্তি অনুসারে ১৪তম সহকারী জজ পদে তিনটি পরীক্ষার মাধ্যমে উত্তীর্ণ ১০২ জনকে মনোনীত করা হয়। যার ফলাফল আজ বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশন সচিবালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

Leave a Comment