বাংলাদেশ ব্যাংকে বাবা-ছেলের প্রথম অফিস

বাবা মোহাম্মদ গোলাম ফারুক বাংলাদেশ ব্যাংকের অতিরিক্ত পরিচালক হিসেবে কর্মরত। একই ব্যাংকে তিন ধাপের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে সহকারী পরিচালক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন তাঁর ছেলে মোহাম্মদ গোলাম রাব্বানী। মেধাতালিকায় তাঁর অবস্থান ৩২তম। গত বৃহস্পতিবার ছিল বাবা-ছেলের একসঙ্গে প্রথম অফিস। সেদিন বাংলাদেশ ব্যাংকে তোলা বাবা-ছেলের একসঙ্গে অফিস করার ছবিটা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

বাবার হাত ধরে যে ছেলে একসময় প্রতিদিন স্কুলে যেতেন, এখন বাবা-ছেলে একসঙ্গে একই রিকশায় অফিসে যাবেন। ছেলে মোহাম্মদ গোলাম রাব্বানী প্রথম আলোকে বলেন, ‘সকালে যখন বাবার সঙ্গে অফিসের উদ্দেশ্যে বের হই, তখন অন্য রকম একটা ভালো লাগা কাজ করছিল। রিকশায় যেতে যেতে মাথায় এসেছিল বাবার সঙ্গে একটা ছবি তুলে রাখব। বাংলাদেশ ব্যাংকে নেমেই বাবাকে একসঙ্গে ছবি তোলার কথা বলি।’

গোলাম রাব্বানী বলেন, ‘এরপর ছবিটা আমার ফেসবুক ওয়ালে পোস্ট করি। কমেন্ট বক্সে এবং অনেকে ফোন করে শুভেচ্ছা জানান। বাবা ছবিটা বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের গ্রুপে পোস্ট করেন। ছবির ক্যাপশনে লিখেছিলেন, “বাবা-ছেলের একসাথে অফিসের প্রথম দিন।’ মূলত সেখান থেকে ছবিটা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের বিভিন্ন গ্রুপ ও পেজে ছড়িয়ে পড়ে।’

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিষয়ে স্নাতক শেষে বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএতে এমবিএ করছেন গোলাম রাব্বানী। এ ছাড়া জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ডেটা সায়েন্সে স্নাতকোত্তর এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ওপর পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ডিপ্লোমা করেছেন। বুয়েটে স্নাতকের শেষ বর্ষে পড়া অবস্থায় সরকারি চাকরি করবেন বলে মনস্থির করেন রাব্বানী।

বাবা-ছেলের একসঙ্গে অফিসে যাওয়ার আনন্দ ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। চাকরিরত অবস্থায় আমার সঙ্গে আমার সন্তান একই অফিসে যাচ্ছে, এর চেয়ে ভালো লাগার আর কিছু হতে পারে না।

রাব্বানী বলেন, ‘বুয়েটের শেষ বর্ষে সিদ্ধান্ত নিলাম, বিদেশে না গিয়ে দেশেই মা–বাবার সঙ্গে থাকব। তাই সরকারি চাকরির প্রস্তুতি শুরু করি। বাবা যেহেতু বাংলাদেশ ব্যাংকে চাকরি করতেন, তাই একটা স্বপ্নও ছিল বাংলাদেশ ব্যাংকে চাকরি করার। এ ছাড়া সহকারী পরিচালক পদের বেতন ও সুযোগ-সুবিধা অনেক ভালো।’

গোলাম রাব্বানীর বাবা মোহাম্মদ গোলাম ফারুক ১৯৮৫ সালে বাংলাদেশ ব্যাংকে মুদ্রা নোট পরীক্ষক পদে যোগদান করেন। এরপর দুবার ব্যাংকিং ডিপ্লোমা পাস করে অফিসার শাখায় পদোন্নতি পান। বর্তমানে এ ব্যাংকে অতিরিক্ত পরিচালক হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি বলেন, ‘কেন্দ্রীয় ব্যাংকে চাকরি করে সৎ ও নিয়মতান্ত্রিকভাবে জীবনযাপন করার পন্থাটাই আমার ছেলেকে এ চাকরিতে আসতে আকৃষ্ট করেছে। সঙ্গে তার চেষ্টাও ছিল।’

মোহাম্মদ গোলাম ফারুক বলেন, ‘বাবা-ছেলের একসঙ্গে অফিসে যাওয়ার আনন্দ ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। চাকরিরত অবস্থায় আমার সঙ্গে আমার সন্তান একই অফিসে যাচ্ছে, এর চেয়ে ভালো লাগার আর কিছু হতে পারে না।’

Leave a Comment