Breaking News
Home / BCS Examination / ‘‌‌একদিন অর্ধেক আরেক দিন বাকি অর্ধেক শিক্ষার্থী স্কুলে যাবে’

‘‌‌একদিন অর্ধেক আরেক দিন বাকি অর্ধেক শিক্ষার্থী স্কুলে যাবে’

করো’না-পরবর্তী সময়ে যখন প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলবে তখন এক দিন অর্ধেক শিক্ষার্থী স্কুলে যাবে, বাকি অর্ধেক যাবে অন্য দিন। এভাবে এক দিন পর এক দিন স্কুলে যাবে শিক্ষার্থীরা।স্কুলে প্রবেশের আগে সাবান-পানি দিয়ে শিক্ষার্থীদের হাত ধুতে হবে। সবাইকে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। আর শিক্ষার্থীসহ সবার তাপমাত্রা মেপে স্কুলে ঢুকতে হবে।

এসব নানা প্রস্তাব রেখেই কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে বিদ্যালয় পুনরায় চালু করার গাইডলাইন তৈরি করছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘করো’না-পরবর্তী সময়ে স্কুল কিভাবে চলবে সে ব্যাপারে আম’রা একটি গাইডলাইন তৈরি করছি।

এ বিষয়ে আমাদের কাজ শেষের পথে। দু-এক দিনের মধ্যেই এটা নীতিমালা আকারে জারি করা হবে।’ তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কবে খুলবে তা এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি জানিয়ে সচিব বলেন, করো’না পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে সরকার এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।

আজ মঙ্গলবার এই গাইডলাইন নিয়ে বৈঠক হয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে। স্কুল ম্যানেজিং কমিটি, জনপ্রতিনিধি, স্থানীয় প্রশাসন এই গাইডলাইন মনিটরিং করবে। বিদ্যালয়ে অবস্থানকালে করণীয় ছাড়াও মাস্ক কিভাবে পরতে হবে, হাত কিভাবে ধুতে হবে, স্যানিটাইজার কিভাবে ব্যবহার করতে হবে- এগুলোর ভিডিও তৈরি করে সোশ্যাল মিডিয়াসহ টিভি-পত্রিকায় প্রচার করা হবে।

শি’শু শিক্ষার্থীদের সুরক্ষায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলার আগে, খোলা অবস্থায় নিরাপত্তা ও পাঠদান সময়ে শিক্ষার্থীদেরে উপসর্গ বা আ’ক্রান্ত হলে করণীয় কী’- এসব উঠে এসেছে সেই গাইডলাইনে।দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় কোনো কোনো বিদ্যালয় অ’পরিচ্ছন্ন ও নোংরা হতে পারে।

১৫ দিন আগে খুলে দেওয়া হবে শিক্ষক-কর্মচারীদের জন্য, যাতে তারা প্রয়োজনীয় অবকাঠামো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে পারেন। শিক্ষার্থীরা মাস্ক নিজের ব্যবস্থাপনায় আনতে হবে। তবে হাত ধোয়ার বিষয়টি স্কুল দেখবে।এ ছাড়া প্রতিদিন শিক্ষার্থীদের বসার বেঞ্চ পরিষ্কার করতে হবে।

যেসব স্কুলে টিউবওয়েল বা পানির ব্যবস্থা নেই, সেখানে সেই ব্যবস্থা করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছ। স্থায়ীভাবে ব্যবস্থা না করতে পারলে ক্ষণস্থায়ীভাবে ড্রাম বসাতে হবে। আর এসব ব্যয় নির্বাহের জন্য প্রতিটি স্কুলকে বার্ষিক যে ৫০ হাজার টাকা দেওয়া হয়, সেখান থেকে ব্যয় করতে হবে।বিডি-প্রতিদিন

About pressroom

Check Also

কঠোর পরিশ্রম ও দৃঢ় মনোবলে বিসিএস ক্যাডার হন সায়মা

ডা. সায়মা সাদিয়া শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজের লেকচারার। বাবা মো. শহিদুল্লাহ, মা শারমিন আকতার। বরিশাল সরকারি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered by keepvid themefull earn money