Breaking News
Home / Bank Preparation / যেভাবে নিতে হবে প্রস্তুতি লক্ষ যদি হয় ব্যাংকের চাকরি..

যেভাবে নিতে হবে প্রস্তুতি লক্ষ যদি হয় ব্যাংকের চাকরি..

সুযোগ-সুবিধা বেশি থাকায় অনেকেরই প্রথম পছন্দ বেসরকারি ব্যাংকের চাকরি। শুরুতে অনেক ব্যাংক নিয়োগ দেয় ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি অফিসার বা প্রবেশনারি অফিসার পদে। বিস্তারিত জানাচ্ছেন রায়হান আহমদ আশরাফী, ছবি তুলেছেন কাকলী প্রধান

পেশা হিসেবে তরুণদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে ব্যাংকিং। সরকারি ব্যাংকের পাশাপাশি বেসরকারি ব্যাংকেও আছে দারুণ সুযোগ। সারা বছরই বিভিন্ন পদে লোক নেওয়া হয়। তবে শুরুতে অনেক ব্যাংক নিয়োগ দেয় ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি অফিসার বা প্রবেশনারি অফিসার পদে।

বাছাই প্রক্রিয়া

ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি পদে শিক্ষাগত যোগ্যতা ব্যাংকভেদে ভিন্ন। সাধারণত এক থেকে তিনটি প্রথম শ্রেণি চাওয়া হয়। কোনো তৃতীয় বিভাগ থাকলে আবেদনের সুযোগ থাকে না। কিছু ব্যাংক সার্কুলারে নির্দিষ্ট করে উল্লেখ করে দেয়, কোন কোন বিষয়ের শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে। মিডল্যান্ড ব্যাংক প্রধান কার্যালয়ের ফার্স্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট রাকিবুল হাসান জানান, ‘আবেদনকারীদের কাগজপত্র প্রাথমিক বাছাই শেষে নেওয়া হয় লিখিত পরীক্ষা। পরের ধাপে উত্তীর্ণদের অ্যাপটিচ্যুড টেস্ট বা সরাসরি মৌখিক পরীক্ষায় ডাকা হয়। শেষে প্রার্থীদের মেডিক্যাল টেস্ট করা হয়। সব ধাপ পেরিয়ে চূড়ান্তভাবে নির্বাচিতরা কাজে যোগ দেয়।’

কাজের ধরন

রাকিবুল হাসান জানান, ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি নিয়োগের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা, শারীরিক ফিটনেস, নেতৃত্বের গুণাবলি বা কাজের প্রতি আগ্রহসহ বিভিন্ন বিষয় দেখা হয়। যোগদানের পর দেওয়া হয় ফাউন্ডেশন ট্রেনিং। ট্রেইনিদের প্রথম বছর বিভিন্ন ডেস্কে কাজ করতে হয়।

মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি অফিসার অভিজিত কুমার সাহা বলেন, ‘জেনারেল ব্যাংকিং, ফরেন ট্রানজেকশন, ক্রেডিট ডিভিশন, ইন্টারনেট ব্যাংকিংসহ বিভিন্ন বিভাগে কাজ করার ফলে সব ধরনের কাজ এবং গ্রাহকের চাহিদা সম্পর্কে ধারণা হয়ে যায়। এক বছর বিভিন্ন ট্রেনিং, ধাপে ধাপে কাজের মাধ্যমে আধুনিক ব্যাংকিংয়ের সঙ্গে পুরোপুরি মানিয়ে নেওয়া যায়।

এবি ব্যাংকের ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি অফিসার হিমেল জামিউল হাসান জানান, এবি ব্যাংকের এমটিও প্রোগ্রামের মেয়াদ দুই বছর। যোগদানের পর ট্রেনিং একাডেমি এবং প্রধান কার্যালয়ে এক মাসের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। বিভিন্ন মৌলিক বিষয় শেখার সঙ্গে সঙ্গে প্রধান কার্যালয়ের সব বিভাগে কাজ করতে হয়। সাত মাস একটি শাখায় জেনারেল ব্যাংকিংয়ের ওপর, আট মাস অন্য শাখায় ক্রেডিটের ওপর, শেষে ফরেন এক্সচেঞ্জের ওপর অপর একটি শাখায় অন জব ট্রেনিং দেওয়া হয়।

তিনি আরো জানান, অন জব ট্রেনিংয়ের ফাঁকে দুই মাসের জন্য বিআইবিএমে ফাউন্ডেশন ট্রেনিং হয়। বিভিন্ন বিষয়ে শর্ট কোর্সের জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে। এবার মালয়েশিয়া যাচ্ছেন এবি ব্যাংকের ৯ জন ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি অফিসার।

পরীক্ষা পদ্ধতি

প্রশ্ন করা হয় ইংরেজিতে। বেশির ভাগ পরীক্ষায় বাংলা থেকে প্রশ্ন আসে না। কোনোটাতে থাকলেও খুব কম নম্বর বরাদ্দ থাকে। বেশির ভাগ প্রশ্ন আসে ইংরেজি, গণিত, অ্যানালিটিক্যাল অ্যাবিলিটি, কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি এবং সাধারণ জ্ঞান থেকে।

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট বিআইবিএম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (আইবিএ), সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ এবং ফ্যাকাল্টি অব বিজনেস স্টাডিজ বেশির ভাগ বেসরকারি ব্যাংক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন প্রণয়ন করে। প্রতিষ্ঠানভেদে প্রশ্নের ধরন ও মান বণ্টন ভিন্ন হয়।

ইংরেজি

হিমেল জামিউল হাসান বলেন, পরীক্ষায় ভালো করার জন্য গ্রামারের প্রতিটি নিয়ম এবং তার প্রয়োগ বিশদভাবে জানতে হবে। ভোকাবুলারিতে জোর দিতে হবে। মুখস্থ না করে গল্পের মতো করে Synonym, Antonym বারবার পড়তে হবে, বারবার লিখে চর্চা করতে হবে। ইংরেজি দৈনিক পত্রিকা, অন্তত ভালোমানের দুটি গ্রামার বই পড়তে হবে।

অভিজিত কুমার সাহা বলেন, বহু নির্বাচনী অংশে Sentence completion, Analogy, Synonym, Antonym, Sentence correction, Pin point error, Phrase and idoims থেকে প্রশ্ন আসে। লিখিত পরীক্ষায় সাধারণত ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদ, একটি অনুচ্ছেদ থেকে কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর লিখন, ক্রিটিক্যাল রাইটিং, রিপোর্ট রাইটিং, একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে রচনা লিখন থাকতে পারে।

গণিত

গণিতে ভালো করলে নিয়োগ পরীক্ষার দৌড়ে অন্যদের চেয়ে এগিয়ে থাকা সম্ভব। বহু নির্বাচনী এবং লিখিত উভয় অংশেই কয়েকটি অধ্যায় থেকে সব সময় প্রশ্ন আসে। এগুলো হলো—কাজ, ক্ষমতা, বয়স, সময়, গতি, অনুপাত, সুদ-আসল, অংশীদারিত্ব, গড়, দূরত্ব, আয়তন, লগারিদম, সম্ভাব্যতা, বর্গমূল, ঘনমূল, উত্পাদক বিশ্লেষণ, জ্যামিতিতে ত্রিভুজ ও চতুর্ভুজের কোণ পরিমাপ, রেখার দৈর্ঘ্য নির্ণয় প্রভৃতি।

হিমেল জামিউল হাসান বলেন, বেশির ভাগ পরীক্ষায় ক্যালকুলেটর ব্যবহার নিষিদ্ধ থাকে। এ জন্য মুখে মুখে অঙ্ক সমাধান শিখতে হবে। দ্রুত সমাধানের জন্য জানতে হবে সংক্ষিপ্ত পদ্ধতি। তবে লিখিত পরীক্ষায় সংক্ষিপ্ত নিয়মে অঙ্ক করা যাবে না, ধাপে ধাপে সমাধান দেখাতে হবে। প্রয়োজনে পাশে উল্লেখ করতে হবে ফুটনোট।

অ্যানালিটিক্যাল অ্যাবিলিটি

অ্যানালিটিক্যাল অ্যাবিলিটি অংশের নির্দিষ্ট কোনো সিলেবাস নেই। বিগত বছরগুলোর আইবিএর এমবিএ ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন সমাধান করলে অ্যানালিটিক্যাল অ্যাবিলিটির প্রশ্ন সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। যে যত দ্রুত কোনো সমস্যা সমাধান করতে পারবে, সে তত ভালো করতে পারবে। এ জন্য নিয়মিত চর্চা করতে হবে।

বাংলা

বিগত বছরের প্রশ্নপত্র বিশ্লেষণে দেখা যায়, সাহিত্য অংশে বিখ্যাত কবি ও সাহিত্যিকদের জীবনী থেকে প্রশ্ন করা হয়। ব্যাকরণ অংশে বাক্য সংকোচন, বাগধারা, সমার্থক ও বিপরীতার্থক শব্দ, প্রতিশব্দ, পারিভাষিক শব্দ, সন্ধিবিচ্ছেদ, সমাস, শব্দ ও বাক্যের শ্রেণিবিভাগ থেকে প্রশ্ন আসে।

কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি

কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি অংশের বেশির ভাগ প্রশ্ন মুখস্থনির্ভর। কম্পিউটারের প্রকারভেদ, হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার, ডাটাবেজ, অপারেটিং সিস্টেম, নেটওয়ার্কিং, বেসিক কম্পিউটার প্রোগ্রামিংসহ মৌলিক বিষয়াবলি থেকে প্রশ্ন আসে। থাকতে পারে ক্লাউড কম্পিউটিং, সাইবার সিকিউরিটি, ইন্টারনেট, তথ্যপ্রযুক্তির বড় প্রতিষ্ঠান এবং সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সম্পর্কে প্রশ্ন।

সাধারণ জ্ঞান

সাম্প্রতিক বিষয়াবলির ওপর জোর দেওয়া হয়। পরীক্ষার আগে ঘটে যাওয়া সব জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে প্রশ্ন আসতে পারে। নিয়মিত কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স পড়তে হবে। অর্থনীতি ও ব্যাংকিং বিষয়েও প্রশ্ন করা হয়। অভিজিত কুমার সাহা বলেন, ‘সাধারণ জ্ঞানে বেশি সময় নেওয়া যাবে না। এখানে ভেবেচিন্তে উত্তর করার কিছু নেই।’

সহায়ক যত

ইংরেজির প্রস্তুতির জন্য দেব কুমার চ্যাটার্জির ওয়ার্ড ট্রেজার, এস এম জাকির হোসেনের এ প্যাসেজ টু দ্য ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ, প্যাসিফিক পাবলিকেশনের সিনোনিম অ্যান্ড অ্যান্টোনিম এবং জিআরই, টোফেল ও জিম্যাটের বইগুলো দেখতে পারেন। গণিতের জন্য সাইফুরস ম্যাথ, নোভাস জিআরই ম্যাথ বই থেকে নিয়মিত চর্চা করলে কাজে দেবে। কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তির জন্য বাজারের ভালোমানের তথ্যপ্রযুক্তি বই দেখতে পারেন। সাধারণ জ্ঞানের জন্য জাতীয় দৈনিকের পাশাপাশি মাসিক তথ্যভিত্তিক পত্রিকা সহায়ক হবে। বিগত বছরের পরীক্ষার প্রশ্ন সমাধানের বই পাওয়া যায় বাজারে। কোনো একটি বই থেকে সব ব্যাংক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন সমাধান করলে অনেক কমন পাওয়া

About pressroom

Check Also

৩৮তম বিসিএসে পররাষ্ট্র ক্যাডার হলেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আল-আমিন!

চট্টগ্রাম কলেজের ছাত্র ছিলেন মো. আল আমিন সরকার। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে পড়াশোনা করলেও তিনি তার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered by keepvid themefull earn money