বাংলা ব্লগারে আপনাকে স্বাগতম, সবার আগে সঠিক তথ্য পেতে আমাদের সাথে থাকুন সব সময়। আমাদের বেশির ভাব তথ্য বিশ্লেষন করে তারপর উপস্থাপন করা হয়। শতভাগ তথ্য অনলাইন থেকে সংগ্রহ করে বিশ্লেষনের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়। আপনি চাইলে যে কোন তথ্য আমাদের কাছেও পাঠাতে পারেন।
তো চলুন আজকের বিষয়’টি নিয়ে পড়ে নেওয়া যাক….

নেপালের এই শহরটিতে তখন পিনপতন নিরবতা। ঘড়ির কাটা রাত ৯টা মাত্র অতিক্রম করেছে। বাইরে প্রচুর ঠাণ্ডা। দোকানগুলো বন্ধ হতে শুরু করেছে। লোকজন একেবারে কমে গেছে। আশপাশের রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছে কয়েকটি কুকুর। নাগরকোট শহর বলেই সেখানে অনেক রাত।

এমনই সময় শহরের উপকণ্ঠের একটি দোকানে দেখা মিলল বাংলাদেশি টেলিভিশন অভিনেত্রী মিথিলাকে। পাশেই রয়েছে কলকাতার নামী চিত্রপরিচালক সৃজিৎ মুখার্জি। ওই শুনশান রাতে তারা একান্ত সময় কাটাচ্ছেন।

সে সময় দুজনকে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে ব্যস্ত দেখা গেছে। দোকানে তারা দুজন ছাড়া আর কেউ নেই। মিথিলা একটি জিনিস নিয়ে এসে সৃজিৎকে দেখালেন। এরপর ঝুড়িতে রাখলেন। সৃজিৎও দেখছেন তাকিয়ে। তারপর পণ্য নিয়ে ঝুড়িতে রাখছেন। ওই সময় সৃজিৎ ও মিথিলার আলাপচারিতার ধরন দেখে বোঝার উপায় নেই যে, তারা শুধু বন্ধু।

বিনোদন জগতে মিথিলার সঙ্গে সৃজিৎকে নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই চলছিল ফিসফাস। দুজনকে প্রায়ই দেখা যায় নানা জায়গায়। তবে বরাবরই তারা একে অপরকে ‘জাস্ট ফ্রেন্ড’ বলে দাবি করেছেন। কিছুদিন আগেও পারিবারিক আবহে ছবি দিয়ে সংবাদের শিরোনাম হয়েছিলেন। কদিন আগেও দুর্গাপূজায় একসঙ্গে ছবি তুলে ফেসবুকে পোস্ট করে খবরের শিরোনামে এসেছেন।

এর কিছুদিন আগে মেয়ের কারণে সাবেক স্বামী তাহসান ও মিথিলাকে যুক্তরাষ্ট্রে দেখা যায়। ওই সময় ধারণা করা হয়েছিল, এই দুজন ফের বুঝি একই ছাদের নিচে আসছেন। কিন্তু এবার অনলাইনে প্রকাশিত একটি ভিডিওতে মিথিলা-সৃজিৎকে দেখা মিলল নেপালে। তাও দেশটির রাজধানী থেকে অনেক দূরে।

এদিকে সময় কাটানোর জন্য এমন নিরিবিলি জায়গা বেছে নিয়েও ক্যামেরার হাত থেকে রেহাই পেলেন না দুই বাংলার দুই তারকা। এরপর আর নিশ্চয়ই তাহসানের সঙ্গে একই ছাদে বসবাসের প্রশ্ন আসবে না। তবে এসব বিষয়ের সঠিক জবাব পেতে আরো অপেক্ষা তো করতেই হবে।

News Reporter

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *