যেভাবে পড়লে ব্যাংকে চাকরি হবেই!

সোনালী, অগ্রণী, জনতা ব্যাংকসহ অনেক বড় সার্কুলার হয়েছে। আপনি এ বছরে অনেক পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ পাবেন। তাই এখনই সময়, নিজেকে প্রস্তুত করুন। নিজের তথা পরিবারের স্বপ্ন পূরন করুন। এবার মূল কথায় আসি- ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা সাধারণত তিন ধাপে হয়।

• প্রিলিমিনারি অর্থাৎ MCQ,
• লিখিত ও
• ভাইভা।

চাকরি পাওয়াটা লিখিত এবং ভাইভার নাম্বারের উপর নির্ভর করে। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল MCQ। কারণ MCQ পাস না করলে আপনি লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। তাই কিভাবে MCQ পাস করা যায় সেই ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করছি।

ব্যাংকের প্রশ্ন সাধারণত বাংলা, ইংরেজি, গণিত, সাধারণ জ্ঞান (বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক), কম্পিউটার, IT & IQ বিষয়গুলোর উপর হয়। এবার প্রশ্ন করবে বাংলাদেশ ব্যাংক তাই প্রশ্নের ধরণ পরিবর্তন হতে পারে আবার কঠিনও হতে পারে। প্রশ্ন যেভাবেই হোক না কেন নিজেকে মানুষিক ভাবে প্রস্তুত রাখুন। আজকের আলোচনা বিগত সালের প্রশ্ন গুলোর আলোকে।

শুরু করবেন যেভাবে:

প্রস্তুতির শুরুতেই সরকারি ব্যাংক জবের একটি বই কিনুন। এক্ষেত্রে Professor’s A Key To Govt. Bank Job বইটা ভালো। এই বই থেকে ২০১২-২০১৫ সাল পর্যন্ত সরকারি ব্যাংকের সকল প্রশ্নগুলো সমাধান করুন। আবার বলছি, ২০১২-২০১৫ সালের সব প্রশ্নগুলোর সমাধান করুন। এতে প্রশ্ন সম্পর্কে আপনি পরিষ্কার ধারনা পাবেন আর পরীক্ষায় কিছু কমনও পাবেন।

 

এরসাথে ৩৬তম বিসিএস এর বিশেষ সংখ্যা বইটি অবশ্যই পড়বেন। এই বইটি পড়লে এক ঢিলে দুই পাখি মারতে পারবেন অর্থাৎ ব্যাংক প্রস্তুতির সাথে অন্যান্য সরকারি চাকুরিতে কাজে লাগবে।

ব্যাংকের পরীক্ষার জন্য আপনি সর্বোচ্চ ৩ মাস সময় পাবেন। তাই আগামী ২০ দিন থেকে ১ মাসের মধ্যে উপরের ২টি বই যেভাবে পারেন পড়ে শেষ করুন। দেখবেন আপনার আত্মবিশ্বাস অনেক বেড়ে গেছে। এর সাথে সাথে যা যা পড়বেন;

• বাংলা সাহিত্য: বিসিএস প্রিলি ডাইজেস্ট এর বাংলা সাহিত্য অংশ পড়ুন।

• বাংলা ব্যাকরণ: ৯ম – ১০ম শ্রেণির বোর্ড ব্যাকরণ বইটা একবার হলেও রিডিং পড়ুন।

• গণিত: প্রথমে গণিতের সকল সূত্রগুলো বারবার পড়ুন। বিসিএস প্রিলি ডাইজেস্ট এর গণিত অংশ শেষ করুন এবং আরিফুর রহমানের Short cut math অথবা MP3 Math Review যেকোনো একটা বই অবশ্যই পড়বেন।

 

• ইংরেজি: ৮ম শ্রেণির Advance Learners by Chowdhury and Hossain এর বইয়ের Grammar অংশটুকু পড়ুন। আপনার বেসিক অনেক স্ট্রং হবে। English For Competitive Exams এই বইটা অসাধারণ, অবশ্যই বইটি পড়বেন। এছাড়া S@ifur’s vocabulary Book পারলে MBA এর Admission test এর কিছু প্রশ্ন Solve করুন।

• সাধারণ জ্ঞান: মাসিক Current Affairs পড়ুন এবং ৩৬তম বিসিএস এর বিশেষ সংখ্যা বইটির অথবা বিসিএস প্রিলি ডাইজেস্টের বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক অংশ।

• Computer ও IT: Easy Computer বই এবং ২০১২-২০১৫ সালে আসা প্রশ্ন গুলো থেকে Computer and ICT অংশটুকু পড়ুন।

আমার বিশ্বাস উপরের বইগুলো পড়তে পারলে সরকারি প্রায় সকল চাকরির পরীক্ষার প্রিলিতে আপনার চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। তবে প্রস্তুতি নিন আপনার নিজের মত করে। আপনি চাইলে এর সাথে আরো কিছু বই পড়তে পারেন। আমিও জানি আরও কিছু বই পড়া দরকার। সেই বইগুলোর কথা বলে আপনাকে লোড দিতে চাচ্ছি না। তবে যেটুকু পড়বেন ভাল করে পড়বেন, কিছু বাদ দিবেন না।

এবার আপনার মনের কিছু কনফিউশন দূর করি। অনেকেই ভাবছেন আপনার চাকরি হবে না। কেন হবে না সেটা কি একবারও ভেবে দেখেছেন? যে চাকরি পায় আর যে পায় না এই দুইয়ের মধ্যে পার্থক্য হল পড়ালেখা। সে অনেক পড়ালেখা করেছে তাই চাকরি পেয়েছে আপনি পড়ুন আপনারও চাকরি হবে।

 

আবার অনেকেই বলছেন টাকা বা ঘুষ ছাড়া চাকরি হবে না। যারা এমন ভাবছেন তাদের চাকরি কখনই হবেনা। কারণ এই চিন্তা আপনার মেধাকে ধ্বংস করে দিবে। বিশ্বাস করুন আর নাই করুন নিয়োগ স্বচ্ছ হয় এবং হবে। তবে সামান্য ব্যতিক্রমও আছে এবং থাকবে কিন্তু তা আসলেই সামান্য। আমার খুব কাছের অনেক বন্ধুর চাকরি হয়েছে কোনো টাকা ছাড়া। এর মধ্যে এক বন্ধুর ৬ টা ব্যাংকে চাকরি হয়েছে। আপনার পরিচিত অনেকেই এরকম আছেন যাদের চাকরি পেতে একটা টাকাও লাগেনি। অর্থাৎ শুধু মেধা থাকলেই আপনার চাকরি হবে। পড়ুন, ভাল পরীক্ষা দিন, আপনার চাকরি হবেই। এর বাইরে কিছুই ভাবার দরকার নেই। যারা নেগেটিভ কথা বলবে তাদের এড়িয়ে চলুন।

আর একটা বিষয় এবার নিয়োগ দিবে ব্যাংকার সিলেকশন কমিটি যেখানে সকল ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা থাকবেন যার প্রধান হলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর। আবার বলছি নিয়োগ স্বচ্ছ হয় এবং হবে। তাই No চিন্তা Do পড়ালেখা At the end of the day you will win the game।

সংশোধিত ও পরিমার্জিত।

কার্টেসি: মোঃ হামিদ পারভেজ, অফিসার, সোনালী ব্যাংক লিমিটেড।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *